কণ্যা ও তার স্বপ্ন খুনের আর্তনাত দেখার কেউ নেই

0
38

নিজস্ব প্রতিবেদক: সোনিয়ার আত্মহননই নয় বরং খুন হয়েছে চিকিৎসক হওয়ার স্বপ্নও। সহায়তা তো দুরে থাক ঘটনার চারদিন পার হলেও সান্তনা দিতে পাশে দেখা যায়নি রাজনীতিবিদ কিংবা জেলা প্রশাসনকেও।

নিহতর মা দিনমজুর ফুলবানুর বুকফাটা আর্তনাতে এ তথ্য উঠে এসেছে। এসময় তিনি আরো বলেন, পরিক্ষার সময় টাকা দিতে পারিনাই তাই স্কুলের স্যারেরা আমার মেয়ের তিনটি পরীক্ষা নেয়নাই। ঘটনার আগে শনিবার আমার মেয়ে সোনিয়াকে বকেয়া বেতনের টাকার জন্য কান ধরিয়ে দাড় করে রাখে এবং একপর্যায়ে বেঞ্চের নিচে মাথা দিতে বলে।

শুধু তাই নয় এরপর সোমবার একই কারণে বেত দিয়ে হাতের উপরে পিটায়। বাসায় এসে আমাকে ডান হাত দেখিয়ে সোনিয়া আমাকে বলে, মা আমারে কি টাকা দেবানা এই দেহ টাকা দাওনাই তা আমারে কেমনে মারছে। এরপর আমি আমার মেয়ের হাতে হলুদ দিয়ে দিয়ে বলেছি মা তোর ব্যথা ভালো হয়ে যাবে।

আর আমি তোরে কয়েকদিনের মধ্যে টাকা এনে দিমু। কিন্তু কোন ম্যাডামে পাওনা টাকার জন্য মেরেছে আর কান ধরিয়েছে তা কি নিহত সোনিয়া বলেছিলো এনিয়ে তিনি আরো বলেন, আমার মেয়ে বলেছে মা ম্যাডামে আমারে টাকার জন্য মারে আর কান ধরিয়ে রাখে। কোন ম্যাডামে তা বলেনি।

এদিকে অনুসন্ধানসুত্রে আরো জানা গেছে, নগরীর রুইয়ার পুল এলাকায় নগাও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা ফারজানা বকেয়া বেতনের জন্য শিক্ষার্থীদের কান ধরান বেঞ্চের উপর দাড় করিয়ে রাখাসহ নানান অপমানজনক কর্মকান্ড ঘটান।

এনিয় স্থানীয় সাংবাদিকসহ একাধিক অভিভাবক বলেন, দ্ররিদ্রতার কারণে ছাত্র-ছাত্রীরা টাকা দিতে পারেনা আর স্কুলে বকেয়া বেতন আদায়ের জন্য উনি ছাত্র-ছাত্রীদের সাথে নানান রকম অপমানজনক কার্যক্রম তৈরী করে তা অন্তত অর্ধ শতাধিক বাসিন্দা বলতে পারবে।

এহেন কর্মকান্ডের ব্যাপারে বরিশাল জেলা প্রশাসনের এডিসি শিক্ষা বলেন, এবিষয়ে অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নিতে সুবিধা হয়।

স্কুলের বেতন দিতে নাপারায় স্কুল শিক্ষিকার ভৎর্সনা সইতে নাপেরে সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী নিহতর ঘটনায় কোতয়ালী পুলিশের এসআই মহিউদ্দিন (পিপিএম বার) বলেন, এঘটনায় লাশের সুরতহাল শেষে ময়নাতদন্তের জন্য ভিসেরা ঢাকায় পাঠানো হয়েছে আশাকরি এক সপ্তাহের মধ্যেই রিপোর্ট পাবো।

এব্যাপারে নওগাও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো: ফারুকহোসেন বলেন, এঘটনায় আমরা তদন্ত কমিটি করেছি।